সোমবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২৩, ০৪:২৯ অপরাহ্ন

কেন্দুয়ায় পানির অভাবে আমন ধান চাষে কৃষকরা বিপাকে

কেন্দুয়ায় পানির অভাবে আমন ধান চাষে কৃষকরা বিপাকে

নিজস্ব প্রতিনিধি:
নেত্রকোনার কেন্দুয়া উপজেলায় অত্যাধিক তাপে  উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নে পানির অভাবে আমন ধানের জমি ফেটে যাচ্ছে।  আগস্ট মাসে সাধারণত আমাদের দেশে বৃষ্টির পরিমান বেশি হয়ে থাকে। এই  বৃষ্টির পানি উপর নির্ভরশীল এই মৌসুমের কৃষকরা। বর্তমানে বৃষ্টি না থাকায় মহা সংকটে পড়েছেন আমন ধান রোপনকারীরা।
মঙ্গলবার (২৩ আগস্ট) দুপুরে উপজেলার সান্দিকোনা, মাসকা, নওপাড়া, চিরাং, ইউনিয়নে কৃষকদের সাথে সরেজমিনে, কেন্দুয়া উপজেলা বিভিন্ন ইউনিয়নে বিভিন্ন গ্রামের ফসলের মাঠ ঘুরে রোপা আমন ধানের জমিতে এমন চিত্র চোখে পড়ে।  অত্যাধিক তাপ  ও অনাবৃষ্টির কারণের আমন ধান ফলানো কৃষকদের মাঝে হাহাকার পরিলক্ষিত হচ্ছে পাশাপাশি এখনও এমন অনেক অনাবদি জমি রয়েছে, যেখানে জমির মাটি অত্যাধিক তাপে শুকিয়ে ফেটে যাচ্ছে, সেখানে শক্ত মাটিতে আমনের ধানের চারা রোপন করা যাচ্ছে না।
 অনাবৃষ্ঠি ও অত্যাধিক তাপে জমিতে আমনের চারা না লাগাতে পারায়,  কৃষকদের চোখে মুখে এখন চিন্তার ভাঁজ। চলতি মৌসুমে দেখা নেই বৃষ্টির। জমিতে পানি না থাকায় আমন ধান লাগাতে পারছেন না কৃষক। পানির অভাবে জমিতে রোপণ করা ধান গাছ মরে যাচ্ছে। জমির মাটি ফেটে চৌচির হয়ে যাচ্ছে। আমন ধান চাষ সম্পূর্ণ পানির ওপর নির্ভরশীল হওয়ায় বিপাকে পড়েছেন, নেত্রকোনা জেলার কেন্দুয়া উপজেলার হাজারো কৃষক পাশাপাশি  বৃষ্টিপাত না থাকায় প্রচন্ড দাবদাহ সহ খরা আর অনাবৃষ্টিতে একদিকে জনজীবন যেমন অতিষ্ঠ তেমনি হুমকির মুখে পড়েছে জীববৈচিত্র্য সহ ফসলের চাষাবাদ।
কেন্দুয়া উপজেলার নওপাড়া ইউনিয়নের কৃষক সাকি  জানান, আমন ধানের মৌসুম শুরু থেকে তেমন বৃষ্টির দেখা নেই। কিছু দিন আগে কিছু পরিমান বৃষ্টি হয়েছিল, সেই পানি থেকে নিচু অংশের জমিতে চারা রোপণ করেছিল। এখন পানির অভাবে রোপন করা সেই চারা গুলি শুকিয়ে যাচ্ছে। এখন একমাত্র আল্লাহ প্রদত্ত বৃষ্টির পানির উপরই ভরসা রাখছেন  এই মৌসুমের কৃষকেরা।
উপজেলার সান্দিকোনা ইউনিয়নের  প্রখর রোদে মাটির শুকিয়ে যাওয়ায়  জমিতে আমনের চারা রোপন করা প্রায় অসম্ভব ।  এ প্রসঙ্গে সান্দিকোনা ইউনিয়নের খিদিরপুর গ্রামের কৃষক মনজিল ভূইয়া বলেন, বৃষ্টি  না হওয়ায় পানির অভাব এবং বিদ্যুৎের লোডশেডিং জনিত কারণে  অত্যাধিক তাপে কৃষকদের জমি শুকিয়ে মাটি ফেটে যাওয়ায় জমিতে চারা রোপন নিয়ে বিপাকে কৃষকেরা।
উপজেলা কান্দিউড়া, নওপাড়া, চিরাং  ইউনিয়নসহ বেশ কয়েকটি ইউনিয়নের কয়েকজন কৃষকের সাথে কথা বলে জানা যায় এই চলতি মৌসুমে অনেক কৃষক তাদের ফসলি জমির চারা গাছ বাঁচাতে ইঞ্জিল চালিত ও বিদ্যুৎ চালিত মিশিয়ে মাধ্যমে জমিতে সেচ দিয়ে তাদের চাষাবাদ চালিয়ে নিচ্ছিলেন কিন্তু  বিদ্যুতের লোডশেডিং এর কারণে তৃনমুল পর্যায়ের কৃষকরা পড়ছেন বিপাকে। যখনই বিদ্যুৎ আসে তখনই ফসলি জমির আমনের  চারা বাঁচাতে ইঞ্জিল চালিত ও বিদ্যুৎ চালিত মিশিনের  মাধ্যমে জমিতে পানি সরবরাহ করে থাকেন। এতে করে তাদের খরচ অনেক বেশি বেড়ে গিয়েছে। আবার অনেকে বৃষ্টি অপেক্ষার দিন গুনছে।
তেল ও সারের দাম বেশি তাই এই চলতি মৌসুমে ধান আবাদ করে লোকসানে থাকতে হবে তাদের। একমাত্র বৃষ্টি আসলেই কৃষক হাসবে, জমিতে ফলবে সোনালী ফসল,এই অপেক্ষায় হাজারো কৃষক।

শেয়ার করুন

Comments are closed.




© All rights reserved © 2022 Protidiner Kagoj