বুধবার, ১২ Jun ২০২৪, ১০:০৫ অপরাহ্ন

পূর্বধলায় বেড়ে গেছে বেওয়ারিশ কুকুরের উপদ্রব

পূর্বধলায় বেড়ে গেছে বেওয়ারিশ কুকুরের উপদ্রব

সাদ্দাম হোসেন, পূর্বধলা (নেত্রকোনা) প্রতিনিধি:
নেত্রকোনার পূর্বধলা শহরে বেড়ে গেছে মাত্রাতিরিক্ত বেওয়ারিশ ও পাগলা কুকুরের উপদ্রব। শহরের বিভিন্ন স্থানে দল বেঁধে চলাচল করছে এসব কুকুর। এদের আক্রমণে মানুষসহ বিভিন্ন পশু ও প্রাণি আক্রান্ত হচ্ছে। এছাড়াও কিছু কুকুর শরীরে ক্ষত ও পচনসহ বিভিন্ন রোগ বালাই নিয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছে। আক্রান্ত এসব কুকুরের শরীর থেকে ছড়াচ্ছে নানা রকমের রোগ জীবাণু এবং দুর্গন্ধ। এসব অসুস্থ প্রাণির বিচরণে এলাকায় মানুষের চলাফেরা কঠিন হয়ে পড়েছে।কুকুরের আতঙ্কে অসহায় সাধারণ মানুষ। পথচারী ও স্কুল ছাত্রছাত্রী এখন কুকুর আতঙ্কে ভুগছে।

সরেজমিনে দেখা যায, পূর্বধলা স্টেশন বাজার, উপজেলা পরিষদ ও হাসপাতাল গেইটের সামনে, আমতলা, গালর্স স্কুল রোড, মঙ্গলবাড়িয়া বাজার, কালিবাড়ি, বুধির মোড়, ছোছাউড়া মসজিদের সামনে, বড় বাজার মোড়, জামতলা, থানা রোডসহ বিভিন্ন রাস্তার মোড়ে মোড়ে দিনেরাতে প্রায় ডজনখানিক বেওয়ারিশ কুকুরের সঙ্গবদ্ধ দল রাস্তায় ঘুরে বেড়ায়। কখনও কখনও রাস্তায় মাঝে বসে ও শুয়ে থাকে। স্কুলকলেজগামী শিক্ষার্থীরা ভয়ে স্কুলে যেতে চাচ্ছে না। পথচারীরা একা রাতে এসব রাস্তা দিয়ে পথ চলতে ভয় পায়।

স্কুলছাত্রী মোসা. সারমিন আক্তার বলেন, সকালবেলা একাই স্কুল ওপ্রাইভেট যেতে খুব ভয় লাগে এছাড়াও মাঝে মাঝে কুকুরের দল একা পেলে ঘেউ ঘেউ তেড়ে আসে।স্টেশন বাজারের ব্যবসায়ী বিকাশ চন্দ্র বলেন, কুকুরের ভয়ে রাতে একাএকা বাড়িতে আসা যায় না। বাড়ি যাওয়ার পথে অডিটরিয়াম, কালিবাড়ি ও বুধির মোড়ে ১০/১৫টি বেওয়ারিশ কুকুর ধাওয়াও করে। কুকুরের উৎপাতে চলাচল করা অসম্ভব হয়ে পরেছে।ব্যবসায়ী লুৎফর রহমান জানান, রাতে বাসায় ফেরার সময় কুকুরগুলো পথ রোধ করে ধরে। একারণে একজন সঙ্গীর অপেক্ষায় থাকতে হয়।

উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা, ডা. এম.এম.এ আউয়াল তালুকদার বলেন, ভ্যাকসিনাইজেশনের বিষয়ে আপাতত কোন কিছু করা যাচ্ছেনা।
উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ভারপ্রাপ্ত) মাহমুদা আক্তার বলেন, আন্তর্জাতিক আইনে নিরীহ প্রাণিকে হত্যার বিষয়টি মানবতা পরিপন্থী হওয়ার কারণে বর্তমানে কুকুর নিধন বন্ধ করে ভ্যাকসিনাইজেশনের আওতায় আনা হয়েছে। ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সাথে আলোচনা করে সংশ্লিষ্ট দপ্তরের মাধ্যমে ভ্যাকসিন প্রদান করা হবে।

শেয়ার করুন

Comments are closed.




দৈনিক প্রতিদিনের কাগজ © All rights reserved © 2024 Protidiner Kagoj |