শনিবার, ১৫ Jun ২০২৪, ০৯:০৯ অপরাহ্ন

মুক্তি পেলেন পিকে হালদারের সহযোগীর দুই মেয়ে

মুক্তি পেলেন পিকে হালদারের সহযোগীর দুই মেয়ে

মুক্তি পেয়েছেন ব্যাংক ও আর্থিক কেলেঙ্কারির অভিযোগে অভিযুক্ত প্রশান্ত কুমার হালদারের অন্যতম সহযোগীর দুই মেয়ে। বুধবার রাতে তাদের মুক্তি দেওয়া হয়। বৃহস্পতিবার (২৫ আগস্ট) এ তথ্য নিশ্চিত করেন দুই মেয়ের আইনজীবী মো. আবু তালেব। পিকে হালদারের সহযোগী পিপলস লিজিং অ্যান্ড ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিসেস লিমিটেডের (পিএলএফএসএল) সাবেক পরিচালক মো. খবির উদ্দিনের দুই মেয়ে হচ্ছেন শারমিন আহমেদ ও তানিয়া আহমেদ।

র‍্যাব হেফাজত থেকে মুক্তির সময় দুই মেয়ের পরিবারের চার সদস্যের পাসপোর্ট ও দুই সদস্যের জাতীয় পরিচয়পত্র জমা নেওয়া হয়। শারমিন ও তানিয়ার আইনজীবী সাংবাদিকদের জানান, ১১ সদস্যের মধ্যে দুই বোনসহ পরিবারের ছয় সদস্যের পাসপোর্ট ও দুই সদস্যের জাতীয় পরিচয়পত্র র‍্যাবের কাছে জমা দেওয়ার পর বুধবার রাতেই দুই বোনকে র‍্যাব হেফাজত থেকে মুক্তি দেওয়া হয়। অন্য তিনজন সরাসরি খবির উদ্দিনের পরিবারের সদস্য নয়, দূর সম্পর্কের আত্মীয় বলে আদালতকে জানানো হয়। আদালত এ বিষয়ে আগামী সোমবার লিখিতভাবে জানাতে বলেছেন।

এর আগে আদালত গত ৭ মার্চ আর্থিক প্রতিষ্ঠান পিপলস লিজিংয়ের ঋণখেলাপি ৬৪ ব্যক্তি-প্রতিষ্ঠানকে তলব করেন। হাজির না হলে তাদের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারির কথাও সেদিন বলেন আদালত। ওই তালিকায় শারমিন ও তানিয়া ছিলেন। তারাসহ ৩০ ব্যক্তি হাজির না হওয়ায় গত ১৯ এপ্রিল আদালত তাদের গ্রেফতার করে আদালতে হাজির করার নির্দেশ দেন। এর মধ্যে বুধবার (২৪ আগস্ট) ভোরে রাজধানীর ধানমন্ডি ও শ্যামলী থেকে মো. খবির উদ্দিনের দুই মেয়ে শারমিন আহমেদ ও তানিয়া আহমেদকে গ্রেফতার করে র‍্যাব-৩। এরপর দুপুরে তাদের হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট কোম্পানি কোর্টে হাজির করে র‍্যাব। এরপর আদালত তাদের শর্ত সাপেক্ষে মুক্তির নির্দেশ দেন।

প্রসঙ্গত, পিএলএফএসএল খবির উদ্দিনসহ তার পরিবারের ১১ সদস্যের কাছে ১৯৬ কোটি টাকা পাবে বলে দাবি করছে। এই ঋণের ৫ শতাংশ অর্থ ৩০ দিনের মধ্যে জমা দিয়ে আদালতে প্রতিবেদন দিতে দেওয়া বলা হয়। এর পর তাদের র‍্যাব হেফাজতে নিয়ে যাওয়া হয়

শেয়ার করুন

Comments are closed.




দৈনিক প্রতিদিনের কাগজ © All rights reserved © 2024 Protidiner Kagoj |