শনিবার, ১৮ মে ২০২৪, ০৪:৪৪ অপরাহ্ন

অতিরিক্ত লোডশেডিংয়ে অতিষ্ঠ জনজীবন ব্যাহত উৎপাদন

অতিরিক্ত লোডশেডিংয়ে অতিষ্ঠ জনজীবন ব্যাহত উৎপাদন

খায়রুল খন্দকার টাঙ্গাইল :
গত কয়েকদিন টাঙ্গাইল জেলার বিভিন্ন উপজেলার গ্রাম ও শহরে লোডশেডিং বেড়েছে। দিনরাত প্রায় বারো থেকে পনের ঘণ্টা লোডশেডিং হচ্ছে। সবচেয়ে বেশি লোডশেডিং হচ্ছে গ্রাম এলাকায়।  দিনে তীব্র তাপদাহ, রাতে ভ্যাপসা গরম। সেই সঙ্গে যোগ হয়েছে দুর্বিষহ মাত্রায় বেড়েছে লোডশেডিং। সব মিলিয়ে গ্রাম ও শহরের জনজীবন অতিষ্ঠ। লোডশেডিংয়ের কারণে আউশ ও রোপা আমনের ক্ষেতে সেচ সংকট দেখা দিয়েছে। উৎপাদন ব্যাহত হচ্ছে কলকারখানায়।
বর্তমানে ভূঞাপুর উপজেলার বিভিন্ন এলাকার ফসলি মাঠজুড়ে আউশ ধান রোপণের কাজ চলছে। কৃষকরা রোপা আমন রোপণের জন্য বীজতলা তৈরির কাজ শুরু করেছেন। বৃষ্টি না থাকায় কৃষকেরা গভীর-নলকূপ থেকে জমিতে সেচ দিয়ে জমি প্রস্তুত করছেন।
এ ছাড়া উপজেলায় ছোটবড় প্রায় ৫০০শত কলকারখানা রয়েছে। এসব কারখানায় বিদ্যুতের ব্যাপক চাহিদা থাকে। পাশাপাশি প্রচণ্ড গরমের কারণেও বিদ্যুতের চাহিদা বেড়ে যাওয়ায় লোডশেডিং করতে হচ্ছে। সরেজমিনে এই ব্যাপারে বৃহস্পতিবার (১৮ আগষ্ট) উপজেলার গোবিন্দাসী গ্রামের বাসিন্দা রবিন হোসেন বলেন, ‘প্রায় এক সপ্তাহ ধরে শুধু রাতেই পাঁচ-ছয় ঘণ্টা ধরে লোডশেডিং হচ্ছে। গরমের কারণে ঠিকমতো ঘুমাতে পারি না।’
উপজেলার নিকরাইল গ্রামের বাসিন্দা তৌফিক হাসান বলেন, ‘শহরের চেয়ে গ্রামে আরও বেশি সমস্যা। গ্রামে কারেন্ট গেলেই মনে হয় আর আসার খবর নাই। এত গরম হচ্ছে তার মধ্যে দিন ও রাতের বেশির ভাগ সময় লোডশেডিং হচ্ছে।’
গৃহিণী শান্তা বেগম বলেন, ‘বিদ্যুৎ যায় আর আসে। এক ঘণ্টা থাকলে আবার দেড় থেকে দুই ঘণ্টা থাকছে না। এদিকে আবার রোদ-গরম। খুব অশান্তি অনুভব করছি। বাচ্চার ঠিকমতো পড়াশোনাও হচ্ছে না। দ্রুত সমস্যার সমাধান না করা হলে অসুস্থ হয়ে যাব আমরা।’
শহরের গনেশ মোড়ের বাসিন্দা রফিকুল ইসলাম বলেন, ‘আমার মতো বয়স্ক মানুষকে গরমে খুবই অসুবিধায় পড়তে হচ্ছে। একে তো গরম, তার মধ্যে আবার লোডশেডিং খুবই সমস্যা হচ্ছে শারীরিক ভাবে আমি খুবই অসুস্থবোধ করছি। এমন লোডশেডিং বন্ধে সরকারকে দ্রুত প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণের অনুরোধ করছি।’
লোডশেডিংয়ের কারণে জমিতে সেচ দিতে বিড়ম্বনায় পড়েছেন প্রান্তিক চাষিরা। বেশির ভাগ সময় বিদ্যুৎ না থাকায় সেচব্যবস্থা ব্যাহত হচ্ছে বলে অভিযোগ তাদের।উপজেলার চরনিকলা গ্রামের কৃষক মিজানুর রহমান বলেন, ‘ডিপ টিউবওয়েলের মাধ্যমে ঠিক সময় পানি সেচ করা যাচ্ছে না। জমিতে সময়মতো পানি দিতে না পারলে ফসলের ক্ষতি হবে। দিন ও রাতে বেশির ভাগ সময় ঠিকমতো বিদ্যুৎ থাকছে না।’
ইমদাদুল হক নামের স্থানীয় আরেক কৃষক বলেন, ‘এখন আমন মৌসুম চলছে। জমিতে ঠিকমতো পানি না দিলে ধান রোপণ ব্যাহত হবে। বিদ্যুৎ তো ঠিকমতো থাকছেই না। কৃষকরা যাতে ঠিকমতো বিদ্যুৎ পায়, সেদিকে সরকারের বিশেষ নজর দেয়া প্রয়োজন।
লোডশেডিংয়ের কারণে ছোট-বড় কারখানাগুলোতে উৎপাদন ব্যাহত হচ্ছে। প্রতিদিন কারখানাগুলোতে কর্মঘণ্টা অপচয় হচ্ছে। ফলে লোকসান গুনতে হচ্ছে মালিকদের। শ্রমিকদের কর্মঘণ্টা নষ্ট হচ্ছে। এতে ক্রমেই লোকসানের পাল্লা ভারী হচ্ছে।
উপজেলার মদনের মোড় এলাকায় অবস্থিত রাইস মিলের স্বত্বাধিকারী এনামুল হক বলেন, ‘বিদ্যুৎ পরিস্থিতি স্বাভাবিক থাকলে এবং মিলের গুদামে ধানের মজুত থাকলে প্রতিদিন ২৫০ থেকে ৩০০ মণ চাল উৎপাদন হয়। লোডশেডিংয়ের কারণে এক সপ্তাহ ধরে প্রতিদিন চাল উৎপাদন এখন ১৫০ মণের নিচে নেমে এসেছে।
আরেক রাইস মিলের মালিক জামান দেওয়ান বলেন, ‘বেশির ভাগ সময় বিদ্যুৎ পাচ্ছি না আমরা। আমাদের অনেক ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে। এক সপ্তাহ ধরে এমন সমস্যা চলছে। এমনটা চলতে থাকলে বড় ধরনের লোকশানের মুখে পড়তে হবে আমাদের। তাই দ্রুত বিদ্যুৎ লোডশেডিং বন্ধ করতে বিদ্যুৎ বিভাগের দৃষ্টি কামনা করছি।’
এই ব্যাপারে মুঠোফোনে কথা হয় ভূঞাপুর উপজেলার বিদ্যুৎ বিক্রয় ও বিতরণ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ আনোয়ারুল ইসলাম এর সাথে তিনি লোডশেডিংয়ের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন,গ্যাসস্বল্পতার কারণে বিদ্যুৎ উৎপাদন ব্যাহত হওয়ায় জাতীয় গ্রিড থেকে চাহিদার তুলনায় অনেক কম বিদ্যুৎ সরবরাহ পাচ্ছেন। এ কারণে ঘন ঘন লোডশেডিং হচ্ছে। উপজেলায় গ্রাহকসংখ্যা ৪৫ হাজার। এই পরিমাণ গ্রাহকের প্রতিদিন বিদ্যুতের চাহিদা গড়ে ১৭ মেগাওয়াট। তবে বর্তমানে পাওয়া যাচ্ছে ৭ থেকে ৮ মেগাওয়াট করে। যা চাহিদার তুলনায় অর্ধেক।

শেয়ার করুন

Comments are closed.




দৈনিক প্রতিদিনের কাগজ © All rights reserved © 2024 Protidiner Kagoj |