সোমবার, ১৫ Jul ২০২৪, ০১:২৩ পূর্বাহ্ন

আপডেট
রাতে হঠাৎ শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভের ডাক, উত্তপ্ত ঢাবি তাহলে কি রাজাকারের নাতিরা কোটা পাবে, প্রধানমন্ত্রীর প্রশ্ন সংঘাত যেন না হয় সে লক্ষ্যে কাজ করছে পুলিশ দাউদকান্দির শহীদনগর এমএ জলিল উচ্চ বিদ্যালয়ের কৃতী শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা কর্ণফুলীতে লালচান্দা বলে বিষাক্ত পিরানহা বিক্রি, প্রশাসনের নজরধারী নেই বাংলা ব্লকেড : সরকারকে শিক্ষার্থীদের ২৪ ঘণ্টার আলটিমেটাম পদ্মা নদী ভাঙ্গন রোধে নিজস্ব অর্থায়নে কাজ করছেন, মোস্তফা মুন্সী  চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে স্মারকলিপি প্রদান এবং গণপদযাত্রা শুরু বসুন্ধরা সিমেন্টের ব্যবসায়িক সম্মেলন অনুষ্ঠিত পুলিশের ব্যারিকেড ভেঙে বঙ্গভবনের দিকে যাচ্ছেন শিক্ষার্থীরা
শ্রীপুরে মেম্বারের বিচারের দাবিতে এলাকাবাসীর মানববন্ধন

শ্রীপুরে মেম্বারের বিচারের দাবিতে এলাকাবাসীর মানববন্ধন

জাকির মোড়ল, শ্রীপুর : শ্রীপুরে প্রতিবন্ধী লাল মিয়ার ঘরবাড়ি ভেঙে গুড়িয়ে দেয়ার পর, স্থানীয় প্রশাসনের নিদর্শনায় পূনরায় বসতবাড়ি নির্মাণ করতে গেলে স্থানীয় ইউপি সদস্য বাঁধা দেয়। প্রতিবন্ধী লাল মিয়ার বসতবাড়ি নির্মাণে ইউপি সদস্যের বাঁধার প্রতিবাদে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল করছে স্থানীয় গ্রামবাসী।

আজ সোমবার বিকালে উপজেলার গাজীপুর ইউনিয়নের বাঁশবাড়ি গ্রামের বাঁশবাড়ি টু ফুলবাড়িয়া আঞ্চলিক সড়কে কয়েক শতাধিক মানুষ ঘন্টাব্যাপী ওই মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল করেছে এলাকাবাসী। ভুক্তভোগী প্রতিবন্ধী লাল মিয়া (৬০)উপজেলা বাঁশবাড়ি গ্রামের মৃত রহমান আলীর ছেলে। তিনি একজন শারীরিক প্রতিবন্ধী অভিযুক্ত ইউপি সদস্য মো. ইদ্রিস আলী (৪৫) উপজেলার বাঁশবাড়ি গ্রামের মৃত শামসুল হকের ছেলে। তিনি গাজীপুর ইউনিয়ন পরিষদের ১ নম্বর ওয়ার্ড সদস্য। ভুক্তভোগী লাল মিয়ার স্ত্রী রাহেলা খাতুন বলেন, স্থানীয় প্রভাবশালী সিরাজুল হক ও তার ছেলে মিজানুর আমার বসতবাড়ি ভেঙে গুড়িয়ে দেয়।

এরপর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইউএনও আমার বসতবাড়ি নির্মাণ করে দেয়ার পর আজ সোমবার সকালে ঘরবাড়ি নির্মাণ কাজ শুরু করতে গেলে স্থানীয় ইউপি সদস্য ইদ্রিস আলী এসে হুমকি ধামকি দিয়ে কাঠমিস্ত্রীদের বিদায় করে দেয়।অভিযুক্ত ইউপি সদস্য মো. ইদ্রিস আলীর ব্যক্তিগত মোবাইল ফোনে পরপর কয়েকবার ফোন দিলেও তিনি রিসিভ করেনি। গাজীপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. সিরাজুল হক মাদবর বলেন, আমাকে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইউএনও মহোদয় ফোন দেয়ার পরপরই আমি ইতিমধ্যে মেম্বারকে এবিষয়ে মাথা না ঘামানোর জন্য নিষেধ করেছি।উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) শোভন রাংসা বলেন, বসতবাড়ি ভেঙে গুড়িয়ে দেয়ার পরপরই প্রশাসনের পক্ষে সকল ধরনের পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে।

শেয়ার করুন

Comments are closed.




দৈনিক প্রতিদিনের কাগজ © All rights reserved © 2024 Protidiner Kagoj |